BSNL Employees Union 

West Bengal Circle

249D, B.B. Ganguly Street, Kolkata-12
E-Mail ID:-   bsnleuwb@gmail.com

Author name: BSNL EU WB

সর্ব ভারতীয় মহিলা কনভেনশনে যাওয়ার আগে আজ অর্থাৎ ২৬/১১/২২ তারিখে সিটিও তে একটা কনভেনশনের আয়োজন করা হয়েছিলো। এই সভায় সভাপতিত্ব করেন কম বনানী চট্টোপাধ্যায় এছাড়া বক্তব্য রাখেন কম নন্দিতা দত্ত, কম ঝুমুর ব্যানার্জী,কম সুজয় সরকার, কম অমিতাভ চট্টোপাধ্যায়, এবং কম অনিমেষ মিত্র

*আজ 28.11.2022 তারিখে অনুষ্ঠিত ওয়েজ নিগোসিয়েটিং কমিটির বৈঠকের হাইলাইটস৷* আজ ওয়েজ নিগোসিয়েটিং কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিএসএনএলইউ-এর প্রতিনিধি, কম. অনিমেষ মিত্র, সভাপতি, কম. পি. অভিমন্যু, সাধারণ সম্পাদক, কম. জন ভার্গিস, ডেপুটি সাধারণ সম্পাদক, কম. সুরেশ কুমার এবং কম. মনু মেহরা, এই সভায় উপস্থিত ছিলেন। আলোচনার বিবরণ নিম্নরূপ:- *বেতন স্কেল* BSNLEU আগের মিটিং-এ ম্যানেজমেন্ট পক্ষের প্রস্তাবিত বেতন স্কেলের উপর অসন্তোষ প্রকাশ করেছে। বিস্তারিত আলোচনার পর, নিম্নলিখিত বেতন স্কেলগুলি ম্যানেজমেন্ট পক্ষের দ্বারা অফার করা হয় (অনুলিপি সংযুক্ত)। BSNLEU জানিয়েছে যে, এই বেতন স্কেলগুলি অধ্যয়ন করা হবে এবং প্রতিক্রিয়া দেওয়া হবে। *ফিটমেন্ট* BSNLEU দৃঢ়ভাবে দাবি করেছে যে, 5% ফিটমেন্টের সাথে পে রিভিশন করা উচিত। ফিটমেন্ট সম্পর্কে নিম্নলিখিত চুক্তিতে পৌঁছেছে। ফিটমেন্ট হবে ন্যূনতম 5% বা এক্সিকিউটিভদের দেওয়া ফিটমেন্টের সমান, যেটি বেশি। *ভাতা সংশোধন* BSNLEU দৃঢ়ভাবে দাবি করেছে যে ওয়েজ রিভিশন করা উচিত শুধুমাত্র ভাতার পুনর্বিবেচনার সাথে। এতে ম্যানেজমেন্ট সাইড সম্মত হয়েছে এবং ভাতা পুনর্বিবেচনার বিষয়ে আলোচনা পরবর্তী মিটিং-এ অনুষ্ঠিত হবে। *ওয়েজ নিগোসিয়েটিং কমিটির পরবর্তী সভা 02.12.2022 তারিখে অনুষ্ঠিত হবে৷*

 

প্রতি কমরেড জেলা সম্পাদক, নবম মেম্বারশিপ ভেরিফিকেশনে আমাদের সংগঠন বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছে। রাজ্যগতভাবে ১২৯২ টি ভোটের মধ্যে ৯৭৪ টি ভোট অর্থাৎ ৭৫.৩৯% ভোট আমরা পেয়েছি। সারা দেশে ৪৮ শতাংশেরও বেশী ভোটে আমরা জয়ী হয়েছি। প্রাদেশিক সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক সদস্যকে লাল সেলাম। এই উপলক্ষে আগামীকাল অর্থাৎ ১৫-১০-২০২২ শনিবার বেলা ১টায় এই সার্কেলের প্রতিটি বিভাগে বিজয় সমাবেশ, সভা, মিছিল করার আহ্বান জানাচ্ছে প্রাদেশিক সংগঠন। ২। কলকাতায় অবস্থিত জেলা সংগঠনগুলি একত্রিতভাবে এই কর্মসূচি সিটিও বিল্ডিং, কলকাতায় বেলা ১টায় পালন করবে। এই কর্মসূচি সফল করতে জেলা সম্পাদকরা উদ্যোগ গ্রহণ করুন। সংগ্রামী অভিনন্দনসহ, সুজয় সরকার। প্রাদেশিক সম্পাদক। বিএসএনএল এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন। পশ্চিমবঙ্গ।

তৃণমূলীরা ৮ নম্বর ভেরিফিকেশনে শোচনীয় ভাবে হেরে যাওয়ায় ইউনিয়নটাই প্রায় অস্তিত্বহীন হয়ে যাওয়ায় এবার ৯ম মেম্বারশিপ ভেরিফিকেশনে লড়াই করার সাহস দেখায়নি। বিজেপির ইউনিয়ন লড়াই করে সারা ভারতবর্ষে ৩০টা সার্কেল মিলিয়ে ৫% ভোট পেয়েছে। মিডিয়াতে বাইনারি তৈরির জন্য প্রতি সন্ধ্যায় আসর বসানো যাদের উদ্দেশ্যে সেই রথী মহারথীর এই হল হাল। লাল ঝান্ডার ইউনিয়ন বি এস এন এল এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন সারা ভারতবর্ষে ৪৮.৬২% এবং পশ্চিমবঙ্গে ৭৫% ভোট পেয়েছে। সারা ভারতে এবং এই বাংলায় যখন লাল ঝান্ডাকে ক্রমাগত কোনঠাসা করার চেষ্টা চলছে তখন এই বিপুল জয় অভূতপূর্ব। ৮০০০০ কর্মীকে ভি আর এস দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়ার পর নড়বড়ে সংগঠনকে আবার একটু একটু করে গড়ে তুলে এই জয় প্রায় নতুন প্রজন্মকে সামনে রেখেই। কোভিড কালে যখন সব সংগঠন ঘরে ঢুকে গিয়েছিল ভয়ে তখন একমাত্র লাল ঝান্ডার ইউনিয়ন কর্মীদের পাশে থেকেছে প্রতিনিয়ত। সংস্থার টাওয়ার, কেবল্ সব বিক্রি করে দিতে চাইছে সরকার।৪ জি চালু করতে গড়িমসি করছে প্রাইভেট অপারেটরদের সুবিধা করে দিতেই। বেতন চুক্তি, নতুন প্রমোশন আদায় করা যায়নি, তা সত্বেও এই বিপুল জয় আসলে সরকারের শ্রমিক কর্মচারী নীতির বিরুদ্ধে। তাই এই জয় রাজনৈতিক। এই অভূতপূর্ব, বিপুল জয়ে আসলে শ্রমিক কর্মচারীরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলছে *”.. অনাচার করো যদি, রাজা তবে ছাড়ো গদি। “*